এস.এস.সি.বাংলা প্রথম পত্র অধ্যায় – ১৮ ঝর্ণার গান পদ্য – এর সকল তথ্য ও MCQ প্রশ্নোত্তর PDF ডাউনলোড করুন

নবম-দশম শ্রেণির ঝর্ণার গান অধ্যায়ের  সকল তথ্য ও MCQ প্রশ্নোত্তর পিডিএফ Download 

SSC Bangla 1st Paper MCQ Question With Answer

এখানের সবগুলো প্রশ্ন ও উত্তর পিডিএফ আকারে নিচে দেওয়া লিংক থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

লেখক পরিচিতি

১৮৮২ খ্রিস্টাব্দে কলকাতার কাছাকাছি নিমতা গ্রামে কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত জন্মগ্রহণ করেন। ‘তত্ত্ববোধিনী’ পত্রিকার সম্পাদক ও উনিশ শতকের বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক অক্ষয়কুমার দত্ত ছিলেন তাঁর পিতামহ। সত্যেন্দ্রনাথ বিএ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি কাব্যচর্চা করতেন। দর্শন, বিজ্ঞান, ইতিহাস, ভাষা, ধর্ম ইত্যাদি বিচিত্র বিষয়ের তিনি অনুরাগী ছিলেন। প্রাত্যহিক জীবনে প্রচুর সময় তিনি অধ্যয়ন ও কাব্যানুশীলনে ব্যয় করতেন। সবিতা, সন্ধিক্ষণ, বেণু ও বীণা, হোমশিখা, কুহু ও কেকা, অভ্র-আবীর, বেলাশেষের গান, বিদায় আরতী প্রভৃতি তাঁর মৌলিক কাব্য। তাঁর অনুবাদ-কাব্যগুলোর মধ্যে রয়েছে : তীর্থরেণু, তীর্থ-সলিল ও ফুলের ফসল প্রভৃতি। বিবিধ উপনিষদ, কবির, নানক প্রমুখের রচনা এবং আরবি, ফারসি, চীনা, জাপানি, ইংরেজি, ফরাসি ভাষার অনেক উৎকৃষ্ট কবিতা ও গদ্য রচনা তিনি বাংলায় অনুবাদ করেন। ছন্দ নির্মাণে তিনি অসাধারণ নৈপুণ্যের পরিচয় দিয়েছেন। এজন্য তিনি ‘ছন্দের রাজা’ বলে পরিচিত হন। ১৯২২ খ্রিস্টাব্দে মাত্র চল্লিশ বছর বয়সে তিনি পরলোকগমন করেন।

১৮৮২ খ্রিস্টাব্দে কলকাতার কাছাকাছি নিমতা গ্রামে কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত জন্মগ্রহণ করেন। ‘তত্ত্ববোধিনী’ পত্রিকার সম্পাদক ও উনিশ শতকের বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক অক্ষয়কুমার দত্ত ছিলেন তাঁর পিতামহ। সত্যেন্দ্রনাথ বিএ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি কাব্যচর্চা করতেন। দর্শন, বিজ্ঞান, ইতিহাস, ভাষা, ধর্ম ইত্যাদি বিচিত্র বিষয়ের তিনি অনুরাগী ছিলেন। প্রাত্যহিক জীবনে প্রচুর সময় তিনি অধ্যয়ন ও কাব্যানুশীলনে ব্যয় করতেন। সবিতা, সন্ধিক্ষণ, বেণু ও বীণা, হোমশিখা, কুহু ও কেকা, অভ্র-আবীর, বেলাশেষের গান, বিদায় আরতী প্রভৃতি তাঁর মৌলিক কাব্য। তাঁর অনুবাদ-কাব্যগুলোর মধ্যে রয়েছে : তীর্থরেণু, তীর্থ-সলিল ও ফুলের ফসল প্রভৃতি। বিবিধ উপনিষদ, কবির, নানক প্রমুখের রচনা এবং আরবি, ফারসি, চীনা, জাপানি, ইংরেজি, ফরাসি ভাষার অনেক উৎকৃষ্ট কবিতা ও গদ্য রচনা তিনি বাংলায় অনুবাদ করেন। ছন্দ নির্মাণে তিনি অসাধারণ নৈপুণ্যের পরিচয় দিয়েছেন। এজন্য তিনি ‘ছন্দের রাজা’ বলে পরিচিত হন। ১৯২২ খ্রিস্টাব্দে মাত্র চল্লিশ বছর বয়সে তিনি পরলোকগমন করেন।

চপল পায় কেবল ধাই

চপল পায় কেবল ধাই

কেবল গাই পরীর গান

পুলক মোর সকল গায়

বিভোল মোর সকল প্রাণ।

শিথিল সব শিলার পর

চরণ থুই দোদুল মন

দুপুর-ভোর ঝিঁঝিঁর ডাক

ঝিমায় পথ, ঘুমায় বন।

বিজন দেশ, কূজন নাই

বিজন দেশ, কূজন নাই

নিজের পায় বাজাই তাল

একলা গাই, একলা ধাই

দিবস রাত, সাঁঝ সকাল।

ঝুঁকিয়ে ঘাড় ঝুম-পাহাড়

ভয় দ্যাখায়, চোখ পাকায়

শঙ্কা নাই, সমান যাই

টগর-ফুল-নূপুর পায়

কোন গিরির হিম ললাট

ঘামল মোর উদ্ভবে

কোন পরীর টুটুল হার

কোন নাচের উৎসবে।

খেয়াল নাই-নাই রে ভাই

খেয়াল নাই-নাই রে ভাই

পাইনি তার সংবাদই

ধাই লীলায়-খিলখিলাই-

বুলবুলির বোল সাধি।

বন-ঝাউয়ের ঝোপগুলায়

আরো পড়ুন:  নবম দশম শ্রেণির বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা অধ্যায় - ১৪ এর MCQ প্রশ্ন ও উত্তর PDF ডাউনলোড

কালসারের দল চরে

শিং শিলায়-শিলার গায়

ডালচিনির রং ধরে।

ঝাঁপিয়ে যাই, লাফিয়ে ধাই

ঝাঁপিয়ে যাই, লাফিয়ে ধাই

দুলিয়ে যাই অচল-ঠাঁট

নাড়িয়ে যাই বাড়িয়ে যাই-

টিলার গায় ডালিম-ফাট।

শালিক শুক বুলায় মুখ

থল-ঝাঁঝির মখমলে

জরির জাল আংরাখায়

অঙ্গ মোর ঝলমলে।

নিম্নে ধাই, শুনতে পাই

নিম্নে ধাই, শুনতে পাই

‘ফটিক জল।’ হাঁকছে কে

কণ্ঠাতেই তৃষ্ণা যার

নিক না সেই পাঁক ছেঁকে।

গরজ যার জল স্যাঁচার

পাতকুয়ায় যাক না সেই

সুন্দরের তৃষ্ণা যার

আমরা ধাই তার আশেই।

তার খোঁজেই বিরাম নেই

তার খোঁজেই বিরাম নেই

বিলাই তান-তরল শ্লোক

চকোর চায় চন্দ্রমায়

আমরা চাই মুগ্ধ-চোখ।

চপল পায় কেবল ধাই

উপল-ঘায় দিই ঝিলিক

দুল দোলাই মন ভোলাই

ঝিলমিলাই দিগ্বিদিক।

বিভোল- অচেতন, বিভোর, বিবশ, বিহবল; বিজন- নির্জন, জনশূন্য, নিভৃত; কুজন-কলরব,

বিভোল- অচেতন, বিভোর, বিবশ, বিহবল; বিজন- নির্জন, জনশূন্য, নিভৃত; কুজন-কলরব, চিৎকার, চেঁচামেচি; ঝুম-পাহাড়- নীরব পাহাড়, নির্জন পাহাড়; হিম- তুষার, বরফ, শুক- টিয়ে পাখি; থল- স্থল; ঝাঁঝি- এক প্রকার জলজ গুল্ম, বহুদিন ধরে জমা শেওলা; মখমল- কোমল ও মিহি কাপড়; আংরাখা- লম্বা ও ঢিলা পোশাক বিশেষ; ‘ফটিক জল’- চাতক পাখি। এই পাখি ডাকলে ‘ফটিক জল’ শব্দের মতো শোনা যায়; বিলাই- বিতরণ করি, পরিবেশন করি (বিলোনো থেকে); তান- সুর; তরল শ্লেক- লঘু বা হালকা চালের কবিতা; চকোর- পাখি বিশেষ। কবি-কল্পনা অনুযায়ী এই পাখি চাঁদের আলো পান করে; চন্দ্রমা- চাঁদের আলো; উপল-ঘায়- পাথরের আঘাতে।

ছন্দরাজ কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত ‘ঝর্ণার গান’ কবিতায় ঝর্ণার রূপ ও চলার গতি চমৎকারভাবে তুলে ধরেছেন।

ছন্দরাজ কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত ‘ঝর্ণার গান’ কবিতায় ঝর্ণার রূপ ও চলার গতি চমৎকারভাবে তুলে ধরেছেন। 

ঝর্ণার চঞ্চল পা পুলকিত ও গতিময়। ঝর্ণা স্তব্ধ পাথরের বুকে এঁকে দেয় আনন্দের পদচিহ্ন। নির্জন দুপুরে পাখির ডাকও শোনা যায় না। পাহাড় যেন দৈত্যের মতো ঘাড় ঘুরিয়ে ভয় দেখায়। চঞ্চল ও আনন্দময় পদধ্বনিতে পর্বত থেকে নেমে আসে সাদা জলরাশির ধারাময় ঝর্ণা। চমৎকার এর ধ্বনিমাধুর্য ও বর্ণবৈভব। এই জলধারার যে সৌন্দর্য ও অমিয় স্বাদ তা তুলনারহিত। গিরি থেকে পতিত এই অম্বুরাশি পাথরের বুকে আঘাত হেনে চতুর্দিকে ছড়িয়ে পড়ে যে অপূর্ব সৌন্দর্যের সৃষ্টি করে তা সত্যি মনোহর।

লেখক পরিচিতি

১৮৮২ খ্রিস্টাব্দে কলকাতার কাছাকাছি নিমতা গ্রামে কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত জন্মগ্রহণ করেন। ‘তত্ত্ববোধিনী’ পত্রিকার সম্পাদক ও উনিশ শতকের বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক অক্ষয়কুমার দত্ত ছিলেন তাঁর পিতামহ। সত্যেন্দ্রনাথ বিএ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি কাব্যচর্চা করতেন। দর্শন, বিজ্ঞান, ইতিহাস, ভাষা, ধর্ম ইত্যাদি বিচিত্র বিষয়ের তিনি অনুরাগী ছিলেন। প্রাত্যহিক জীবনে প্রচুর সময় তিনি অধ্যয়ন ও কাব্যানুশীলনে ব্যয় করতেন। সবিতা, সন্ধিক্ষণ, বেণু ও বীণা, হোমশিখা, কুহু ও কেকা, অভ্র-আবীর, বেলাশেষের গান, বিদায় আরতী প্রভৃতি তাঁর মৌলিক কাব্য। তাঁর অনুবাদ-কাব্যগুলোর মধ্যে রয়েছে : তীর্থরেণু, তীর্থ-সলিল ও ফুলের ফসল প্রভৃতি। বিবিধ উপনিষদ, কবির, নানক প্রমুখের রচনা এবং আরবি, ফার্সি, চীনা, জাপানি, ইংরেজি, ফরাসি ভাষার অনেক উৎকৃষ্ট কবিতা ও গদ্য রচনা তিনি বাংলায় অনুবাদ করেন। ছন্দ নির্মাণে তিনি অসাধারণ নৈপুণ্যের পরিচয় দিয়েছেন। এজন্য তিনি ‘ছন্দের রাজা’ বলে পরিচিত হন। ১৯২২ খ্রিস্টাব্দে মাত্র চল্লিশ বছর বয়সে তিনি পরলোকগমন করেন।

আরো পড়ুন:  নবম -দশম শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় অধ্যায় - ৫:বাংলাদেশের ভূপ্রকৃতি ও জলবায়ু | সাধারণ জ্ঞান প্রস্তুতি

ঝর্ণার গান অধ্যায়ের সকল বহুনির্বাচনী সাজেশন

১. বিভোল কার সকল প্রাণ?
 ক) ঝর্ণার
 খ) পাহাড়ের
 গ) পরীর
 ঘ) টগরের
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ২. পাহার যেন দৈত্যের মতো ঘাড় ঘুরিয়ে ভয় দেখায় – এই বাক্যে কোন অলংকার ব্যবহৃত হয়েছে?
 ক) উপমা

খ) উৎপ্রেক্ষা
 গ) যমক
 ঘ) শ্লেষ
 ঠিক উত্তর: (ক)

 ৩. ‘ঝাঁঝি’ অর্থ কী?
 ক) এক প্রকার পাখি
 খ) জল
 গ) ঝর্ণার ঢেউ
 ঘ) এক প্রকার জলজ গুল্ম
 সঠিক উত্তর: (ঘ)

 ৪. ঝর্ণা কিসের রং ধরে যায়?
 ক) মখমলের
 খ) ডালচিনির
 গ) টগর ফুলের
 ঘ) জরির জারের
 সঠিক উত্তর: (খ)

 ৫. বিজন দেশে কী নেই?
 ক) গাছপালা
 খ) পশু-পাখি
 গ) মানুষ
 ঘ) কূজন
 সঠিক উত্তর: (ঘ)

 ৬. ‘শঙ্কা’ শব্দের বিপরীতার্থ প্রকাশ করে কোন শব্দটি?
 ক) ডঙ্কা
 খ) উদ্যম
 গ) বীর্যবান
 ঘ) সাহস
 সঠিক উত্তর: (ঘ)

 ৭. গিরিবনে কীসের উৎসব?
 ক) গানের
 খ) নাচের
 গ) কবিতার
 ঘ) পাখির
 সঠিক উত্তর: (খ)
৮. ‘অঙ্গ মোর ঝলমলে’ – কার?
 ক) পরীর
 খ) পাহাড়ের
 গ) ঝর্ণার
 ঘ) শালিকের
 সঠিক উত্তর: (গ)
 ৯. ঝর্ণার কীসের খেয়াল নেই?
 ক) আনন্দের
 খ) দুঃখের
 গ) বেদনার
 ঘ) নাচের উৎসবের
 সঠিক উত্তর: (ঘ)
 ১০. বন শব্দের সমার্থক শব্দ হচ্ছে – i. অরণ্য ii. অটবি iii. বনানী নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (ঘ) 

 ১১. ‘ঝর্ণার গান’ কবিতায় প্রকাশ পেয়েছে –
i. নিরন্তর ছুটে চলা
ii. বাধা না মানা
iii. পেছনের দিকে তাকানো
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ১২. কারা মুখ বুলায়?
 ক) বুলবুলি-টিয়া
 খ) শালিক-শুক
 গ) চকোর-চাতক
 ঘ) ময়না-কাক
 সঠিক উত্তর: (খ)

 ১৩. ঝুম-পাহাড় – i. চোখ পাকায় ii. ভয় দেখায় iii. আশঙ্কা সৃষ্টি করে নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ১৪. ‘বেলা শেষের গান’ সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের কোন ধরনের রচনা?
 ক) মৌলিক কাব্য
 খ) গানের গ্রন্থ
 গ) গল্পগ্রন্থ
 ঘ) অনূদিত গ্রন্থ
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ১৫. কোন পাখিকে ‘ফটিক জল’ বলে?
 ক) শালিক
 খ) শুক
 গ) চাতক
 ঘ) চকোর
 সঠিক উত্তর: (গ)

 ১৬. ঝর্ণার কোথায় পুলকের অবস্থান?
 ক) প্রাণে
 খ) গায়ে
 গ) চরণে
 ঘ) ললাটে
 সঠিক উত্তর: (খ)
 ১৭. ‘থল’ শব্দের অর্থ কোনটি?
 ক) স্থল
 খ) জল
 গ) তল
 ঘ) মেদ
 সঠিক উত্তর: (ক)

আরো পড়ুন:  এস.এস.সি বাংলা ১ম পত্র অধ্যায় - ৫: গদ্য - নিরীহ বাঙালি এর সকল তথ্য ও MCQ প্রশ্নোত্তর PDF ডাউনলোড করুন

 ১৮. ঝর্ণার কেমন ঝিলিক দেখা যায় –
i. ঝিলিমিলি
ii. উপল ঘায়ের
iii. মন ভোলানো
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i
 খ) ii
 গ) iii
 ঘ) i ও iii
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ১৯. ঝরনা কীসের সংবাদ পায় নি?
 ক) পরীর হার ছেঁড়ার
 খ) ঝিঁঝিঁ পোকা অসুস্থ হওয়ার

গ) টগর ফুলের নূপুর পরার
 ঘ) চাতুকের ডাকার
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ২০. কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্ত ঝর্ণার যে স্বভাব এঁকেছেন, সে অনুযায়ী ঝর্ণার বক্তব্য হলো –
i. একলা গাই
ii. একলা ধাই
iii. বাজাই তাল
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (ঘ)

 ২১. গিরির কীরূপ ললাট ঘেমে ঘর্ণার উদ্ভব হয়েছে?
 ক) তপ্ত
 খ) হিম
 গ) সিক্ত
 ঘ) শুষ্ক
 সঠিক উত্তর: (খ)

 ২২. ঝরনার শরীর ঝলমল করছে কেন?
 ক) জরির লম্বা ও ঢিলা পোশাকে
 খ) গায়ে রং মেখেছে বলে
 গ) গায়ে সূর্যের আলো পড়েছে বলে
 ঘ) জলের ফেনার কারণে
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ২৩. ‘ঝর্ণার গান’ কবিতায় কবি দৈনন্দিন সময়কে যা বলেছেন তা হলো –
i. দিবস-রাত
ii. সাঁঝ-সকাল
iii. দুপুর-ভোর
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (ঘ)

 ২৪. ঝর্ণার কী নেই?
 ক) সন্দেহ
 খ) শঙ্কা
 গ) লজ্জা
 ঘ) অনুভূতি
 সঠিক উত্তর: (খ)

২৫. কীসের হিম ললাট?
 ক) টিলার
 খ) পাহাড়ের
 গ) গিরির
 ঘ) সমুদ্রের
 সঠিক উত্তর: (গ)

 ২৬. ঝিঁঝিঁর ডাক ঝর্ণা কখন শোনে?
 ক) সাঁঝ-সকাল
 খ) দুপুর-ভোর
 গ) দিবস-রাত
 ঘ) সকাল-সন্ধ্যা
 সঠিক উত্তর: (খ)

 ২৭. ‘তরল শ্লোক’ শব্দের অর্থ কোনটি?
 ক) মাত্রাবৃত্ত ছন্দের কবিতা
 খ) লঘু বা হালকা চালের কবিতা
 গ) সহজবোধ্য কাহিনী
 ঘ) দুর্বোধ্য কবিতা
 সঠিক উত্তর: (খ)
 ২৮. ‘ঝর্ণার গান’ কবিতায় ‘ঝুম-পাহাড়’ হলো –
i. নীরব পাহাড়
ii. নির্জন পাহাড়
iii. হিম পাহাড়
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (ক)
২৯. ‘সুন্দরের তৃষ্ণা’ বলতে কী বোঝানো হয়েছে?
 ক) সুন্দরের প্রতি অনুরাগ

খ) সুন্দরের প্রতি বীতশ্রদ্ধা
 গ) সুন্দরের প্রতি অবজ্ঞা
 ঘ) সুন্দরের প্রতি সমর্পণ
 সঠিক উত্তর: (ক)
 ৩০. অক্ষয়কুমার দত্ত কবি সত্যেন্দ্রনাথ দত্তের কে ছিলেন?
 ক) পিতামহ
 খ) মাতামহ
 গ) পিতা
 ঘ) কাকা
 সঠিক উত্তর: (ক)

এছাড়া ও এই অধ্যায়ের আরো অনেকগুলো MCQ সাজেশন পেতে নিচের পিডিএফ ফাইল টি ডাউনলোড করে নিন

PDF File Download From Here

📝 সাইজঃ- 278 KB

📝 পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ 7

Download From Google Drive

Download

  Direct Download 

Download