সহজে শর্টহ্যান্ড বা সাঁটলিপি শেখার বই পিডিএফ ডাউনলোড|Shorthand Bangla Book PDF Download

শর্টহ্যান্ড বাংলা বর্ণমালা শেখার সহজ উপায় পিডিএফ ডাউনলোড

যারা শর্টহ্যান্ড লিখতে পারে তাদেরকেই সাঁট-লিপিকার বলে। বাক্যকে সংক্ষিপ্ত রূপে লিখাকেই শর্টহ্যান্ড বা সাঁট-লিপি বলে। সাঁট-মুদ্রাক্ষরিক হলো টাইপ করা বুঝায়। যারা টাইপমেশিনে বা কম্পিউটারে টাইপ করতে পারে তাদেরকেই মুদ্রাক্ষরিক বলে। আগে এর বহুল ব্যবহার ছিল। বর্তমানে এদের ব্যবহার খুবই সীমিত পর্যায়ে আছে। যারা সাংবাদিকতার সাথে যুক্ত আছেন তাদের মাঝে বেশীর ভাগ সাংবাদিক শর্টহ্যান্ড লিখায় অভ্যস্ত। বিদেশী ডেলিগেট আসে এমন অফিস বা প্রতিষ্ঠানে শাঁট-লিপিকারের প্রয়োজন হয়।

চাকরির ক্ষেত্র:
আধুনিক প্রতিযোগিতামূলক ব্যবসা-বাণিজ্য তথা অফিস-আদালতে শর্টহ্যান্ডের গুরুত্ব ও ভূমিকা অপরিসীম। এর সাহায্যে অফিসের যাবতীয় কার্যাবলি অতি সহজে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে সম্পাদন করা যায়। বিশেষ করে শ্রুতলিপি (Dictation) নেয়ার সময় এর কোনো বিকল্প নেই। গবেষণায় দেখা গেছে, একজন মানুষ স্বাভাবিকভাবে মিনিটে ৬০টি শব্দ মুখে উচ্চারণ করতে পারে। কিন্তু কোনো মানুষ মিনিটে ৬০টি শব্দ লিখতে পারে না। অথচ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের মুখে উচ্চারিত বা বক্তৃতায় বিবৃত সব শব্দই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই এসব কথা ধরে রাখার জন্য শর্টহ্যান্ডের মতো একটি কৌশল প্রয়োজন। তাছাড়া শর্টহ্যান্ড শুধুমাত্র অফিস-আদালতেই সীমাবদ্ধ নয়। ব্যক্তিগত ডায়েরি, শ্রেণী কক্ষের পড়া ইত্যাদি শর্টহ্যান্ডের মাধ্যমে লিপিবদ্ধ করা যায়।

দেশের প্রায় সকল সরকারি, আধা-সরকারি ও স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান সমূহে স্টেনো-টাইপিষ্ট, স্টোনোগ্রাফার (পি.এ), অফিস সহকারী কাম-মুদ্রারিক ও কম্পিউটার অপারেটর পদে অসংখ্য শুন্য পদ রয়েছে। এ সমস্ত প্রতিষ্ঠানে বিধি মোতাবেক বার বার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েও অনেক সময় যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তি না পাওয়ায় লোকবল নিয়োগে দারুণ সংকট দেখা দিচ্ছে। প্রায় প্রতিদিনই বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় কোননা কোন সরকারি-স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানে এ সমস্ত পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখা যায়।

জেনে রাখা ভাল |সাঁটলিপি বা শর্ট হ্যান্ড লেখার নিয়ম

ভাষাকে লিখিয়া প্রকাশ করিবার জন্য কতক গুলি চিহ্ন বা সংকেত-এর প্রয়োজন। সাংকেতিক এই চিহ্ন গুলিকে এক একটি Letter বা বর্ণ বলে। সাঁটলিপিতে আঁচড় বলে।

আরো পড়ুন:  বিসিএস ও চাকরি পরীক্ষার বাছাই করা বাংলা প্রশ্ন সমাধান পিডিএফ ডাউনলোড- পর্ব ৬
সাঁটলিপি আঁচড় ২৪টি।
৩টি বিষয়ের উপর লক্ষ রাখতে হবে –

১. আঁচড় গুলো দেখতে কি রকম? (কার মত)

২. আঁচড় গুলো গতিমুখ জানতে হবে।

৩.  আঁচড় গুলো পরিমাপ জানতে হবে।

২৪টি আঁচড়ে ৩ ধরনের গতিমুখ –

১.  উদ্র্ধগামী

২.  নিম্নগামী

৩.  সম্মুখগামী

–পরিমাপ ৩ প্রকার –

১.  সাঁটলিপি রেখার সম্পূর্ণ অংশ

২.  সাঁটলিপি রেখার অর্ধেক অংশ

৩.  সাঁটলিপি রেখার এক চতুর্থাংশ

📝 সাইজঃ- 11 MB

📝 পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ 28

বই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে অনলাইন লাইভ প্রিভিউ 🕮 দেখে নিন তারপর সিদ্ধান্ত নিন ডাউনলোড করবেন কিনা।

Live Preview এখান থেকে Scroll করে দেখতে পারেন।

Download From any one Link

Download link-1

Download link- 2

Download link -3