এস.এস.সি.বাংলা প্রথম পত্র অধ্যায় – ২৪ তোমাকে পাওয়ার জন্য, হে স্বাধীনতা পদ্য – এর সকল তথ্য ও MCQ প্রশ্নোত্তর PDF ডাউনলোড করুন

নবম-দশম শ্রেণির তোমাকে পাওয়ার জন্য হে স্বাধীনতা অধ্যায়ের  সকল তথ্য ও MCQ প্রশ্নোত্তর পিডিএফ Download 

SSC Bangla 1st Paper MCQ Question With Answer

এখানের সবগুলো প্রশ্ন ও উত্তর পিডিএফ আকারে নিচে দেওয়া লিংক থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

লেখক পরিচিতি

শামসুর রাহমান ১৯২৯ সালের ২৪শে অক্টোবর ঢাকা শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক নিবাস নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার পাড়াতলী গ্রাম। তাঁর পিতা মোখলেসুর রহমান চৌধুরী ও মাতা আমেনা খাতুন। তিনি ১৯৪৫ সালে ঢাকার পোগোজ স্কুল থেকে ম্যাট্রিক, ঢাকা কলেজ থেকে ১৯৪৭ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাশ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। তাঁর পেশা ছিল সাংবাদিকতা। তিনি একনিষ্ঠভাবে কাব্য সাধনায় নিয়োজিত ছিলেন। বিশেষ করে মধ্যবিত্ত নাগরিক জীবনের প্রত্যাশা, হতাশা, বিচ্ছিন্নতা, বৈরাগ্য ও সংগ্রাম তাঁর কবিতায় সার্থকভাবে বিধৃত। তাঁর কবিতায় অতি আধুনিক কাব্যধারার বৈশিষ্ট্য সার্থকভাবে প্রকাশ পেয়েছে। উপমা ও চিত্রকল্পে তিনি প্রকৃতিনির্ভর এবং বিষয় ও উপাদানে শহরকেন্দ্রিক। তাঁর প্রধান কাব্যগ্রন্থ : প্রথম গান দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে, রৌদ্র করোটিতে, বিধ্বস্ত নীলিমা, নিরালোকে দিব্যরথ, নিজ বাসভূমে, বন্দী শিবির থেকে, দুঃসময়ের মুখোমুখি, ফিরিয়ে নাও ঘাতক কাঁটা, এক ধরনের অহংকার, আদিগন্ত নগ্ন পদধ্বনি, আমি অনাহারী, বাংলাদেশ স্বপ্ন দ্যাখে, দেশদ্রোহী হতে ইচ্ছে করে, বুক তার বাংলাদেশের হৃদয়, গৃহযুদ্ধের আগে, হৃদয়ে আমার পৃথিবীর আলো, হরিণের হাড়, মানব হৃদয়ে নৈবেদ্য সাজাই ইত্যাদি। এছাড়া তাঁর কিছু অনুবাদ-কবিতা ও শিশুতোষ কবিতা রয়েছে। শামসুর রাহমান তাঁর অনন্য সাধারণ কবি-কীর্তির জন্য বাংলা একাডেমী পুরস্কার, একুশে পদকসহ অসংখ্য পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হন। তিনি ১৭ই আগস্ট ২০০৬ সালে মৃত্যুবরণ করেন।

More Details…

শামসুর রাহমান ১৯২৯ সালের ২৪শে অক্টোবর ঢাকা শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক নিবাস নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার পাড়াতলী গ্রাম। তাঁর পিতা মোখলেসুর রহমান চৌধুরী ও মাতা আমেনা খাতুন। তিনি ১৯৪৫ সালে ঢাকার পোগোজ স্কুল থেকে ম্যাট্রিক, ঢাকা কলেজ থেকে ১৯৪৭ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাশ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। তাঁর পেশা ছিল সাংবাদিকতা। তিনি একনিষ্ঠভাবে কাব্য সাধনায় নিয়োজিত ছিলেন। বিশেষ করে মধ্যবিত্ত নাগরিক জীবনের প্রত্যাশা, হতাশা, বিচ্ছিন্নতা, বৈরাগ্য ও সংগ্রাম তাঁর কবিতায় সার্থকভাবে বিধৃত। তাঁর কবিতায় অতি আধুনিক কাব্যধারার বৈশিষ্ট্য সার্থকভাবে প্রকাশ পেয়েছে। উপমা ও চিত্রকল্পে তিনি প্রকৃতিনির্ভর এবং বিষয় ও উপাদানে শহরকেন্দ্রিক। তাঁর প্রধান কাব্যগ্রন্থ : প্রথম গান দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে, রৌদ্র করোটিতে, বিধ্বস্ত নীলিমা, নিরালোকে দিব্যরথ, নিজ বাসভূমে, বন্দী শিবির থেকে, দুঃসময়ের মুখোমুখি, ফিরিয়ে নাও ঘাতক কাঁটা, এক ধরনের অহংকার, আদিগন্ত নগ্ন পদধ্বনি, আমি অনাহারী, বাংলাদেশ স্বপ্ন দ্যাখে, দেশদ্রোহী হতে ইচ্ছে করে, বুক তার বাংলাদেশের হৃদয়, গৃহযুদ্ধের আগে, হৃদয়ে আমার পৃথিবীর আলো, হরিণের হাড়, মানব হৃদয়ে নৈবেদ্য সাজাই ইত্যাদি। এছাড়া তাঁর কিছু অনুবাদ-কবিতা ও শিশুতোষ কবিতা রয়েছে। শামসুর রাহমান তাঁর অনন্য সাধারণ কবি-কীর্তির জন্য বাংলা একাডেমী পুরস্কার, একুশে পদকসহ অসংখ্য পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হন। তিনি ১৭ই আগস্ট ২০০৬ সালে মৃত্যুবরণ করেন।

তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা

তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা

তোমাকে পাওয়ার জন্যে

আর কতবার ভাসতে হবে রক্তগঙ্গায়?

আর কতবার দেখতে হবে খাণ্ডবদাহন?

তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা

সাকিনা বিবির কপাল ভাঙল

সিঁথির সিঁদুর মুছে গেল হরিদাসীর।

তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা

তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা

শহরের বুকে জলপাই রঙের ট্যাংক এলো

দানবের মতো চিৎকার করতে করতে।

তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা

ছাত্রাবাস, বস্তি উজাড় হলো। রিকয়েললেস রাইফেল

আর মেশিনগান খই ফোটাল যত্রতত্র।

তুমি আসবে বলে ছাই হলো গ্রামের পর গ্রাম।

তুমি আসবে বলে বিধ্বস্ত পাড়ায় প্রভুর বাস্তুভিটার

ভগ্নস্তূপে দাঁড়িয়ে একটানা আর্তনাদ করল একটা কুকুর।

তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা

তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা

আরো পড়ুন:  Gerund ও Present Participle সহজে চেনার ৫ টি অসাধারণ উপায়/টেকনিক | 5 Easy Bangla Tricks to Identify Gerunds and Participles

অবুঝ শিশু হামাগুড়ি দিল পিতামাতার লাশের উপর।

তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা, তোমাকে পাওয়ার জন্যে

আর কতবার ভাসতে হবে রক্তগঙ্গায়?

আর কতবার দেখতে হবে খাণ্ডবদাহন?

স্বাধীনতা, তোমার জন্যে থুত্থুড়ে এক বুড়ো

স্বাধীনতা, তোমার জন্যে থুত্থুড়ে এক বুড়ো

উদাস দাওয়ায় বসে আছেন-তাঁর চোখের নিচে অপরাহ্ণের

দুর্বল আলোর ঝিলিক, বাতাসে নড়ছে চুল।

স্বাধীনতা, তোমার জন্যে

মোল্লাবাড়ির এক বিধবা দাঁড়িয়ে আছে

নড়বড়ে খুঁটি ধরে দগ্ধ ঘরের।

স্বাধীনতা, তোমার জন্যে

স্বাধীনতা, তোমার জন্যে

হাড্ডিসার এক অনাথ কিশোরী শূন্য থালা হাতে

বসে আছে পথের ধারে।

তোমার জন্যে

সগীর আলী, শাহবাজপুরের সেই জোয়ান কৃষক

কেষ্ট দাস, জেলেপাড়ার সবচেয়ে সাহসী লোকটা

মতলব মিয়া, মেঘনা নদীর দক্ষ মাঝি

গাজী গাজী বলে যে নৌকা চালায় উদ্দাম ঝড়ে

রুস্তম শেখ, ঢাকার রিকশাওয়ালা যার ফুসফুস

এখন পোকার দখলে।

আর রাইফেল কাঁধে বনে-জঙ্গলে ঘুরে বেড়ানো

আর রাইফেল কাঁধে বনে-জঙ্গলে ঘুরে বেড়ানো

সেই তেজি তরুণ যার পদভারে

একটি নতুন পৃথিবীর জন্ম হতে চলেছে-

সবাই অধীর প্রতীক্ষা করছে তোমার জন্যে, হে স্বাধীনতা।

পৃথিবীর একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে জ্বলন্ত

ঘোষণার ধ্বনি-প্রতিধ্বনি তুলে

নতুন নিশান উড়িয়ে, দামামা বাজিয়ে দিগ্বিদিক

এই বাংলায়

তোমাকে আসতেই হবে, হে স্বাধীনতা।

সিঁথির সিঁদুর মুছে গেল হরিদাসীর- হরিদাসী বিধবা হলো। সনাতন ধর্মের মেয়েদের

সিঁথির সিঁদুর মুছে গেল হরিদাসীর- হরিদাসী বিধবা হলো। সনাতন ধর্মের মেয়েদের বিয়ের পর সিঁথিতে সিঁদুর পরিয়ে দেওয়া হয়। তার স্বামী মারা গেলে সেই সিঁদুর মুছে ফেলা হয়। স্বাধীনতা যুদ্ধে আমাদের দেশের এমন অনেক হরিদাসীর স্বামী মুক্তিযুদ্ধ করতে গিয়ে শহিদ হয়েছেন। হরিদাসীর স্বামীও শহিদ হয়েছেন- এ বিষয়টি বোঝানোর জন্য বাক্যটি ব্যবহৃত হয়েছে; যত্রতত্র – যেখানে সেখানে, সব জায়গায়; তুমি আসবে বলে …ছাত্রাবাস, বস্তি উজাড় হলো – স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরুতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী বাঙালিদের ওপর বীভৎস ও ভয়ংকর আক্রমণ চালায়। তারা গ্রামের পর গ্রাম আগুনে পুড়িয়ে দেয়। তাদের সেই আক্রমণ থেকে ছাত্রদের ছাত্রাবাস, গরিব মানুষের থাকার জায়গা, বস্তিও রক্ষা পায়নি। পাকিস্তানি সেনারা ছাত্রাবাস ও বস্তিতেও আক্রমণ করে, এবং সেখানকার মানুষকে নির্বিচারে হত্যা করে এবং পুড়িয়ে নিশ্চিহ্ন করে দেয়; থুত্থুড়ে এক বুড়ো – বয়সের ভারে বিধ্বস্ত লোক, যার বয়স অনেক হয়েছে এবং চলাচল করতে যার কষ্ট হয়; রুস্তম শেখ … এখন পোকার দখলে – রুস্তম শেখ নামের এক রিক্শাওয়ালা যিনি যুদ্ধে শহিদ হয়েছেন। মৃত অবস্থা বোঝানোর জন্য বলা হয়েছে ‘যার সুখদুখ এখন পোকার দখলে’।

‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা’ শীর্ষক কবিতাটি ‘শামসুর রাহমানের শ্রেষ্ঠ কবিতা’

‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা’ শীর্ষক কবিতাটি ‘শামসুর রাহমানের শ্রেষ্ঠ কবিতা’ শীর্ষক কাব্যগ্রন্থ থেকে নেওয়া হয়েছে। কবিতাটি কবির ‘বন্দী শিবির থেকে’ নামক কাব্যগ্রন্থের অন্তর্ভুক্ত।

স্বাধীনতা শুধু শব্দমাত্র নয়, এটি এমন এক অধিকার ও অনুভব যা মানুষের জন্মগত। কিন্তু পাকিস্তানিরা বাঙালিদের স্বাধীনতা হরণ করেছিল। এই স্বাধীনতা অর্জনের জন্য ১৯৭১ সালে আপামর বাঙালি মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। যুদ্ধচলাকালে বাঙালির রক্তে রক্তগঙ্গা বইয়ে দেয় পাকিস্তানি যুদ্ধবাজরা। বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য সংগ্রামে সকিনা বিবির মতো গ্রামীণ নারীর সহায়-সম্বল-সম্ভ্রম বিসর্জিত হয়েছে, হরিদাসী হয়েছে স্বামীহারা, নবজাতক হারিয়েছে মা-বাবাকে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বাঙালিদের ছাত্রাবাস আক্রমণ করে ছাত্রদের হত্যা করে, শহরের বুকে আগেড়বয়াস্ত্র নিয়ে গণহত্যা চালায়, পুড়িয়ে দেয় গ্রাম ও শহরের লোকালয়। এর প্রাকৃতিক প্রতিবাদ ওঠে পশুর কণ্ঠেও। আর্তনাদ করে কুকুরও। মুক্তিযুদ্ধে শ্রমিক, কৃষক, জেলে, রিক্শাওয়ালা প্রমুখ সাধারণ মানুষ আত্মত্যাগ করে। দগ্ধ হওয়া লোকালয় প্রবীণ বাঙালির আলোকিত চোখে চেয়ে থাকে। সেইসঙ্গে নবীন রক্তে প্রাণস্পন্দন ও আশা জেগে থাকতে দেখে কবি মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে দৃঢ়তার সঙ্গে উচ্চারণ করেন- এত আত্মত্যাগ যার উদ্দেশ্যে সেই স্বাধীনতাকে বাঙালি একদিন ছিনিয়ে আনবেই।

লেখক পরিচিতি

শামসুর রাহমান ১৯২৯ সালের ২৪শে অক্টোবর ঢাকা শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক নিবাস নরসিংদী জেলার রায়পুরা থানার পাড়াতলী গ্রাম। তাঁর পিতা মোখলেসুর রহমান চৌধুরী ও মাতা আমেনা খাতুন। তিনি ১৯৪৫ সালে ঢাকার পোগোজ স্কুল থেকে ম্যাট্রিক, ঢাকা কলেজ থেকে ১৯৪৭ সালে ইন্টারমিডিয়েট পাশ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। তাঁর পেশা ছিল সাংবাদিকতা। তিনি একনিষ্ঠভাবে কাব্য সাধনায় নিয়োজিত ছিলেন। বিশেষ করে মধ্যবিত্ত নাগরিক জীবনের প্রত্যাশা, হতাশা, বিচ্ছিন্নতা, বৈরাগ্য ও সংগ্রাম তাঁর কবিতায় সার্থকভাবে বিধৃত। তাঁর কবিতায় অতি আধুনিক কাব্যধারার বৈশিষ্ট্য সার্থকভাবে প্রকাশ পেয়েছে। উপমা ও চিত্রকল্পে তিনি প্রকৃতিনির্ভর এবং বিষয় ও উপাদানে শহরকেন্দ্রিক। তাঁর প্রধান কাব্যগ্রন্থ : প্র ম গান দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে, রৌদ্র করোটিতে, বিধ্বস্ত নীলিমা, নিরালোকে দিব্যরথ, নিজ বাসভূমে, বন্দী শিবির থেকে, দুঃসময়ের মুখোমুখি, ফিরিয়ে নাও ঘাতক কাঁটা, এক ধরনের অহংকার, আদিগন্ত নগ্ন পদধ্বনি, আমি অনাহারী, বাংলাদেশ স্বপ্ন দ্যাখে, দেশদ্রোহী হতে ইচ্ছে করে, বুক তার বাংলাদেশের হৃদয়, গৃহযুদ্ধের আগে, হৃদয়ে আমার পৃথিবীর আলো, হরিণের হাড়, মানব হৃদয়ে নৈবেদ্য সাজাই ইত্যাদি। এছাড়া তাঁর কিছু অনুবাদ-কবিতা ও শিশুতোষ কবিতা রয়েছে। শামসুর রাহমান তাঁর অনন্য সাধারণ কবি-কীর্তির জন্য বাংলা একাডেমী পুরস্কার একুশে পদকসহ অসংখ্য পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত হন। তিনি ১৭ই আগস্ট, ২০০৬ সালে মৃত্যুবরণ করেন।

আরো পড়ুন:  এস.এস.সি বাংলা ১ম পত্র অধ্যায় - ৪: গদ্য - অভাগীর স্বর্গ এর সকল তথ্য ও MCQ প্রশ্নোত্তর PDF ডাউনলোড করুন

তোমাকে পাওয়ার জন্য, হে স্বাধীনতা অধ্যায়ের সকল বহুনির্বাচনী সাজেশন

১. শামসুর রাহমান ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন
 ক) ঢাকা কলেজ থেকে
 খ) চট্টগ্রামের পাহাড়তলী কলেজ থেকে
 গ) কলকাতা ইসলামিয়া কলেজ থেকে
 ঘ) ময়মনসিংহ সরকারি কলেজ থেকে
 সঠিক উত্তর: (ক)
 ২. মেঘনার মাঝি উদ্দাম ঝড়ে নৌকা চালানোর সময় বলে –
 ক) নারায়ে তকবির
 খ) জয় বাবা লোকনাথ
 গ) গাজী গাজী
 ঘ) জয় মা গঙ্গা
 সঠিক উত্তর: (গ)
 ৩. দহন, নিপীড়ন, লুন্ঠন, নির্যাতন, হত্যাযজ্ঞ – শব্দগুলো তোমার পাঠ্যবইয়ের কোন কবিতার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য?
 ক) অন্ধবধূ
 খ) কপোতাক্ষ নদ
 গ) তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা
 ঘ) আমার সন্তান
 সঠিক উত্তর: (গ)
 ৪. ‘জেলেপাড়ার সবচেয়ে সাহসী লোকটা’ – এখানে ‘সাহসী’ হলো –
i. বিপদকে ভয় না করে সামনে এগিয়ে যাওয়া
ii. ভয়কে তুচ্ছ মনে করে কর্তব্য সম্পাদন করা
iii. ভয়কে আরো ভয় মনে করে পিছনে হটা
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (গ)
 ৫. ‘অপরাহ্ন’ শব্দটির পরিচয় হিসেবে কোনটির গ্রহণযোগ্যতা আছে?
 ক) তৎসম
 খ) অর্ধ-তৎসম
 গ) দেশি
 ঘ) আঞ্চলিক
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ৬. ‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা’ কবিতায় কে আসবে বলে সাকিনা বিবির কপাল ভাঙল?
 ক) স্বাধীনতা
 খ) মুক্তিযোদ্ধারা
 গ) মুজিবনগর সরকার
 ঘ) পাক হানাদাররা
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ৭. রুস্তম শেখের ফুসফুস এখন পোকার দখলে কেন?
 ক) রুস্তম শেখ মৃত বলে
 খ) রুস্তম শেখের যক্ষ্মা হয়েছে তাই
 গ) রুস্তম শেখ রিকশাওয়ালা বলে
 ঘ) রুস্তম শেখ সরকারি সহায়তা গ্রহণ করে নি
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ৮. কবি শামসুর রাহমান কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?
 ক) ঢাকা
 খ) নরসিংদী
 গ) রাজশাহী
 ঘ) বরিশাল
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ৯. তেজি তরুণ রাইফেল কাঁধে বনে জঙ্গলে ঘুরে বেড়ায় কেন?
 ক) পশু-পাখি শিকার করতে
 খ) বনদস্যুদের হত্যা করতে
 গ) স্বাধীনতা অর্জনে শত্রু হনন করতে
 ঘ) অ্যাডভেঞ্চারের রোমাঞ্চে
 সঠিক উত্তর: (গ)
 ১০. স্বাধীনতা কোনটি উড়িয়ে আসবে?
 ক) ঝান্ডা
 খ) নিশান
 গ) কেতন
 ঘ) পতাকা
 সঠিক উত্তর: (খ)
 ১১. মোল্লাবাড়ির বিধবা কী ধরে দাঁড়িয়ে আছে?
 ক) গাছের ডাল
 খ) পোড়া ঘরের খুঁটি
 গ) ঘরের চাল
 ঘ) ঘরের বেড়া
 সঠিক উত্তর: (খ)
 ১২. শামসুর রাহমান রচিত কাব্যগ্রন্থ কোনটি?
 ক) দেশদ্রোহী হতে ইচ্ছে করে
 খ) শঙ্কিত আলোকে
 গ) মায়াবী পর্দা দুলে ওঠো
 ঘ) আমি কিংবদন্তির কথা বলছি
 সঠিক উত্তর: (ক)

আরো পড়ুন:  নবম-দশম শ্রেণীর জীববিজ্ঞান অধ্যায় - ৩: কোষ বিভাজন এর সকল গুরত্বপূর্ণ প্রশ্ন সমাধান ও Suggestion PDF ডাউনলোড

 ১৩. ‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা’ কবিতায় উত্থাপিত হয়েছে –
i. স্বাধীনতার জন্য আকাঙ্ক্ষা
ii. স্বাধীনতার স্বরূপ
iii. স্বাধীনতার জন্য জনগণের আত্মত্যাগ
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (গ)

 ১৪. ‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা’ কবিতায় পথের ধারে শূন্য থালা হাতে বসেছিল –
 ক) থুত্থুড়ো বুড়ো
 খ) সাকিনা বিবি

গ) অনাথ কিশোরী
 ঘ) হরিদাসী
 সঠিক উত্তর: (গ)

 ১৫. শামসুর রাহমান কত সালে মৃত্যুবরণ করেন?
 ক) ২০০৫
 খ) ২০০৬
 গ) ২০০৭
 ঘ) ২০০৮
 সঠিক উত্তর: (খ)

 ১৬. থুত্থুড়ে বুড়োর চোখের নিচে কী?
 ক) ঝুলে পড়া চামড়া
 খ) রাতজাগা কালো দাগ
 গ) অপরাহ্নের দুর্বল ঝিলিক
 ঘ) শোকের অশ্রুধারা
 সঠিক উত্তর: (গ)

 ১৭. মোল্লাবাড়ির বিধবার ঘরটি ছিল –
 ক) খড়ের
 খ) টিনের
 গ) দগ্ধ
 ঘ) পরিপাটি
 সঠিক উত্তর: (গ)

 ১৮. ‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা’ কবিতায় কার ফুসফুস এখন পোকার দখলে?
 ক) বুড়োর ছেলের
 খ) বিধবার স্বামীর
 গ) মতলব মিয়ার
 ঘ) রুস্তম শেখের
 সঠিক উত্তর: (ঘ)

 ১৯. স্বাধীনতা আসবে বলে গ্রামের পর গ্রাম কী হয়েছে?
 ক) সুজলা-সুফলা-শস্য-শ্যামলা
 খ) নানা রঙের সাজে সজ্জিত
 গ) পুড়ে ছাই
 ঘ) আলো ঝলমল
 সঠিক উত্তর: (গ)

 ২০. ‘স্বাধীনতা’ হলো একটি দেশের প্রত্যেকটি নাগরিকের –
 ক) জন্মগত অধিকার
 খ) সংগ্রামের ফসল
 গ) আকাঙ্ক্ষার ধন
 ঘ) বিলাসের বস্তু
 সঠিক উত্তর: (ক)
 ২১. পিতামাতার লাশের ওপর কে হামাগুড়ি দিল?
 ক) শেয়াল-শকুন
 খ) ছেলেমেয়ে
 গ) ঘাতকেরা
 ঘ) অবুঝ শিশু
 সঠিক উত্তর: (ঘ)

 ২২. স্বাধীনতার জন্য স্বজন হারানো নারীরা হলো –
i. সাকিনা বিবি
ii. হরিদাসী
iii. রহিমা খাতুন
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ২৩. ‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা’ কবিতায় ‘নতুন নিশান’ দ্বারা কী বোঝানো হয়েছে?
 ক) রংবেরঙের নিশান
 খ) মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণশক্তি
 গ) তরুণ মুক্তিযোদ্ধা
 ঘ) স্বাধীন দেশের পতাকা
 সঠিক উত্তর: (ঘ)

 ২৪. কাদের জীবনের প্রত্যাশা, হতাশা ও সংগ্রাম শামসুর রাহমানের কবিতায় বিধৃত?
 ক) গাঁয়ের কৃষক-মজুর
 খ) মধ্যবিত্ত নাগরিক
 গ) বস্তির শ্রমজীবী মানুষ
 ঘ) উচ্চবিত্ত অভিজাত
 সঠিক উত্তর: (খ)

 ২৫. শামসুর রাহমান প্রকৃতিনির্ভর –
i. উৎপ্রেক্ষায়
ii. উপমায়
iii. চিত্রকল্পে
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (খ)

 ২৬. দগ্ধ হওয়া লোকালয় চেয়ে থাকে –
 ক) হানাদারের পথে
 খ) প্রবীণ বাঙালির চোখে
 গ) মুক্তিযোদ্ধার পথের দিকে
 ঘ) তরুণ নেতৃত্বের মুখের দিকে
 সঠিক উত্তর: (খ)

 ২৭. ‘তোমাকে পাওয়ার জন্যে, হে স্বাধীনতা’ কবিতায় অনাথ বা এতিম হলো –
i. অবুঝ শিশু
ii. হাড্ডিসার কিশোরী
iii. সাকিনা ও হরিদাসী
নিচের কোনটি সঠিক?
 ক) i ও ii
 খ) ii ও iii
 গ) i ও iii
 ঘ) i, ii ও iii
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ২৮. মতলব মিয়া পেশায় কী?
 ক) মাঝি
 খ) কৃষক
 গ) মুদি দোকানি
 ঘ) গায়ক
 সঠিক উত্তর: (ক)

 ২৯. তেজি তরুণের পদভারে হতে চলেছে –
 ক) ভূমিকম্প
 খ) নবজাগরণ
 গ) নতুন পৃথিবীর জন্ম
 ঘ) অন্যায়-অবিচারের সমাপ্তি
 সঠিক উত্তর: (গ)

 ৩০. কর্মজবিনে শামসুর রাহমান কোন পেশা গ্রহণ করেন?
 ক) অধ্যাপনা
 খ) সরকারি চাকরি
 গ) সাংবাদিকতা
 ঘ) ব্যবসা
 সঠিক উত্তর: (গ)

এছাড়া ও এই অধ্যায়ের আরো অনেকগুলো MCQ সাজেশন পেতে নিচের পিডিএফ ফাইল টি ডাউনলোড করে নিন

PDF File Download From Here

📝 সাইজঃ- 227 KB

📝 পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ 7

Download From Google Drive

Download

  Direct Download 

Download