জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ভর্তি আবেদন ও রিলিজ স্লিপ নিয়ে কিছু প্রশ্ন উত্তর |Answer all Questions regarding Admission on Honours at National University

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ভর্তি আবেদন ও রিলিজ স্লিপ সংক্রান্ত সকল সমস্যার সমাধান একসাথে

প্রশ্নঃ ১৯-২০এর ভর্তি আবেদন
কবে শুরু?

উঃ ১সেপ্টম্বর বিকাল ৪টা থেকে শুরু এবং ১৫ সেপ্টেম্বর রাত ১১.৫৯ মিনিটে শেষ।

প্রশ্নঃ আবেদন কোথায় গিয়ে
করতে হবে ?

উঃ যে সকল দোকানে অনলাইনের কাজ করা হয় ঐখানে বা আপনি নিজেও
অনলাইনে করতে পারেন ।

প্রশ্নঃ আবেদনের সময় কী কী
লাগবে ?

উঃ SSC ও HSC এর রােল ও পাশের সন এবং ১ কপি পাসপাের্ট সাইজ রঙ্গিন ছবি এবং ১টি সচল ফোন নাম্বার।

প্রশ্নঃ পাশের সালের কী
কোনাে সীমাবদ্ধতা আছে ?

উঃ হ্যাঁ, আছে। আপনার SSC
২০১৬,১৭এবং HSC ২০১৮,১৯ সালে পাশ থাকতে হবে।১টি কম বা বেশি হলে পারবেন না।

প্রশ্নঃ কতটি কলেজ চয়েজ দিতে হয়?

উঃ ১টি।

প্রশ্নঃ কতটি সাবজেক্ট চয়েজ দেয়া যায় ?

উঃ যে কয়টি আপনার সামনে প্রদর্শিত হবে সব দিতে পারেন। আপনার ইচ্ছা, চাইলে ১টা ও দিতে পারেন।

প্রশ্নঃ, আবেদন অন্য কেউ করে দিলে হবে না ?

উঃ নিজের কাজ নিজে করা শ্রেয়।

প্রশ্নঃ আবেদনের সময় কত টাকা লাগে ?

উঃ ৫০ বা ১শ টাকা।

প্রশ্নঃ আবেদনে যদি কোনাে
প্রকার ভুল হয় অথবা আমি আমার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করি তবে কি নতুন ভাবে আবেদন করা যাবে?

উঃ হ্যাঁ, যাবে। তবে ১বার। কিন্তু ফর্মটি কলেজে জমা দিয়ে দিলে আর যাবে না।

প্রশ্নঃ আবেদনের রোল ও পিন পুনরুদ্ধার করবো কিভাবে?

উঃ আবেদনের ওয়েবসাইটে ডুকলেই নিচের দিকে দেখবেন যে রোল ও পিন পুনরুদ্ধার নামে  একটি অপশন দেখাচ্ছে ঐইটাতে ক্লিক করে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে রোল ও পিন পুনরুদ্ধার করতে পারবেন।

প্রশ্নঃ আবেদন করার পর যদি চান্স না পাই তাহলে কি করব?

উঃ আবেদন করার পর যদি আপনি ১ম মেরিটে চান্স না পান তাহলে ২য় মেরিটের জন্য অপেক্ষা করবেন যদি এতেও না পেলে রিলিজ স্লিপে অন্য কলেজে আবেদন করতে পারবেন রিলিজ স্লিপের ২/৩ টা রেজাল্ট দিতে এর মধ্যে কোনটাতেই যদি আপনি চান্স না পান তাহলে আর কিছু করার নাই।

প্রশ্নঃ আবেদনের সাথে সাথে অথবা কতদিন পরে কলেজে জমা দিতে হবে ?

উঃ ০২/৯/১৯ থেকে ১৬/০৯/১৯ এর মধ্যে।

প্রশ্নঃআবেদন ফর্মটি জমা দিতে নিজেকে যাইতে হবে ?

উঃহ্যাঁ।

প্রশ্নঃ ফর্মটি কোথায় জমা দিবো ?

উঃ যে কলেজটা চয়েজ দিছেন ঐটাতে।

প্রশ্নঃজমা দেয়ার সময় কি কি কাগজ নিয়ে যাবাে ?

উঃ ssc ও hsc এর রেজিঃ কার্ড ও নম্বরপত্র (মার্কশীট) এর ফটো কপি এবং ২ বা ৪ কপি পাসর্পোট সাইজ ছবি। (যদি কলেজের নােটিশ বাের্ডে ছবি চায়)

প্রশ্নঃ কলেজেতাে এখন মার্কশীট
আসে নাই অথবা তুলি নাই অথবা Ssc এর ফটোকপিটাও নাই। তাহলে কি করবাে ?

উঃ অনলাইন থেকে মার্কশীট ডাউনলােড করে ঐটা জমা দিলেও হবে।

প্রশ্নঃকাগজ গুলােকি সত্যায়িত করতে হবে ?

উঃ কলেজের নােটিশ বাের্ডে যদি
কাগজপত্র সত্যায়িত করে চায় তবে দিতে হবে।

প্রশ্নঃ কাগজগুলাের কত কপি করে জমা দিতে হবে ?

উঃ ২ বা ৪ কপি করে।

প্রশ্নঃ কাগজ গুলা জমা দেয়ার সময় কি কিছু করতে হবে ?

উঃ হ্যা…আবেদন পত্র দুটি অংশ থাকবে। ১টি কলেজের অপরটি স্টুডেন্টদের। দুটি অংশ আপনার ছবি নিচে স্বাক্ষর ও তারিখ দিতে হবে। যেদিন জমা দিবেন সেদিনের তারিখ দিবেন।
কলেজ আলাদা ভাবে ফোন নাম্বার চাইলে উপরে লিখতে হবে।

প্রশ্নঃ জমা দেয়ার পর কি কোনাে
মেসেজ আসবে ?

উঃ হ্যা ১টি মেসেজ আসবে।

প্রশ্নঃ কত সময় বা দিনের মধ্যে
মেসেজ টা আসবে?
উঃ ১ থেকে ৫ দিনের মধ্যে।

প্রশ্নঃ যদি মেসেজ না আসে ?

উঃ মেসেজ না আসলে দ্রুত স্বশরীরে কলেজে উপস্থিত হয়ে যােগাযােগ করতে হবে।

প্রশ্নঃ আবেদন গ্রহন হয়েছে তা সিওর হওয়ার কোনাে কি অন্য পথ আছে ? মেসেজ গুলা ডিলিট হয়ে গেছে তাই টেনশনে আছি।

উঃ হ্যা আছে। আপনার কাছে যে আবেদন ফর্ম (কলেজে কাগজ জমা দিলে কলেজ আপনাকে স্টুডেন্ট কপিটা ফেরত দিবে এবং ঐটা আপনারে স্বযত্নে রাখতে হবে) সময় টি আছে ওটাতে ১টি পিন ও পাসওয়ার্ড আছে। ওটা দিয়ে জাবির ওয়েব সাইটে লগ ইন করলে Status -লাল রঙে Submit লেখা থাকবে। আর কলেজ আবেদন গ্রহন করলে তা সবুজ রঙে Receive লেখা হয়ে যাবে।

প্রশ্নঃ আবেদন কলেজে জমা দিতে কত টাকা লাগবে ?
উঃ ২৫০ টাকা

প্রশ্নঃ ফর্মটা কলেজে জমা দিয়েছি মেসেজ আসছে বা আসেনি এখন কি ওটা বাতিল করা যাবে ?

উঃ না।

প্রশ্নঃ১ম মেরিটের রেজাল্ট কবে দিবে ?

উঃনোটিশ দিলে জানতে পারবেন।

প্রশ্নঃ অনলাইনে দেখেছি এক্সেপ্ট করছে। কিন্তু মেসেজ আসে নাই। সমস্যা হবে ?

উঃ কোনাে সমস্যা নেই

প্রশ্নঃ রেজাল্ট কবে দিবে ?

উঃ আবেদন শেষের ১ থেকে ৭ দিনের মধ্যেই দিবে।

প্রশ্নঃ রেজাল্ট দেখবাে কিভাবে ?

উঃ রেজাল্ট মেসেজের মাধ্যমে জানতে মেসেজ অপশনে গিয়ে টাইপ করুন NU ATHN Roll পাঠিয়ে দিন 16222নম্বরে। এখনে আবেদন ফর্মের রােল নম্বর দিতে হবে। এবং
এই পদ্ধতিতে মেধা ও রিলিজের আবেদনের ফলাফল দেখা যাবে।

প্রশ্নঃ আমার ১ম মেরিটে যদি চান্স না হয় ?

উঃ আবার ২য় মেরিট দিবে। ক্লাশ শুরু হয়েছে তাতে টেনশনের কিছু নাই।

প্রশ্নঃ,১ম মেরিটে চান্স পেয়েছি বাট ঐ সাবজেক্ট পছন্দ না ।এখন কি হবে ?

উঃ১ম মেরিটে সুযােগ পেয়ে আপনি যদি ভর্তি না হন তবে আর আপনার রেজাল্ট ২য় মেরিটে দিবে না। আপনাকে রিলিজে আবেদন করা লাগবে।

প্রশ্নঃ আর যদি ২য় মেরিটেও সুযােগ পেয়ে ভর্তি না হই তবে কি
আমার সিটটা থাকবে?

আরো পড়ুন:  প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে (NSI)১৩৯৪ পদে নিয়োগ পরীক্ষার আবেদন পদ্ধতি, সিলেবাস ও মানবন্টন |www.nsi.teletalk.com.bd

উঃতখন আপনাকে রিলিজ স্লিপ তুলতে হবে। আর আপনার সিট থাকবে না

প্রশ্নঃসুযােগ পাওয়ার পর কি করবাে?

উঃ সুযােগ পাওয়ার পর আপনাকে ১টি ফর্ম
অনলাইন থেকে ডাউনলােড করত হবে।এই ফর্মটিতে আপনার থানা,বাবারনাম,মায়ের নাম,মােবাইল নাম্বর ইত্যাদি কিছু তথ্য দিতে হবে। এবং এটির
৩টি কপি নামাতে হবে।১টি বা দুটি হবে কলেজ কপি এবং আর ১টি হবে স্টুডেন্ট কপি।

প্রশ্নগুমেরিট লিস্টে/১ম রিলিজে চান্স পেয়েছি। চূড়ান্ত ফর্ম ডাউনলােড করেছি তবে ভর্তি হতে চাইনা আমি কি ১ম রিলিজে/২য় রিলেজে আবেদন
করতে পারবাে ?

উঃ হ্যা

প্রশ্নঃমাইগ্রেশন কি ভাবে করবাে? মাইগ্রেশন শুধু মাত্র ১ম ও ২য়
মেরিটে সুযােগ প্রার্থীরা করতে
পারবে। সুযােগ পাওয়ার পর যে ফর্মটি ডাউনলােড় করতে যাবেন তখন দােকানদারকে বলবেন যে
মাইগ্রেশন অপশনটা চালু রাখতে।

প্রশ্নঃমাইগ্রেশন করলে কোন সাবজেক্ট পাবাে বা কি নিয়ম এটার ?

উঃ আপনি ৫টা সাবজেক্ট চয়েজ করেছেন।এখন ৩ বা চার নাম্বারটা পেয়েছেন।মাইগ্রেশ করলে আপনি ২ বা ১ নম্বরটা পাবেন। আর ১নং টাই যদিআসে তবে আর মাইগ্রেশন হবে না। নিচ থেকে উপরে যায় ।উপর থেকে নিচে আসে না। আর মাইগ্রেশন করলেই যে পাবেন এমনটা আমি বলতে পারলাে না।এ টা ভাগ্যের ব্যাপার…

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় রিলিজ স্লিপ সংক্রান্ত সকল প্রশ্ন ও উত্তর

যে সকল প্রার্থী মেধা তালিকায় স্থান পাবে না, ভর্তি বাতিল করবে অথবা মেধা তালিকায় স্থান পেয়েও বরাদ্দকৃত বিষয়ে ভর্তি হবে না, সে সকল প্রার্থী সর্বোচ্চ পাঁচটি কলেজে আলাদাভাবে বিষয় পছন্দ নির্ধারণ করে রিলিজ স্লিপের জন্য আবেদন করতে পারবে।

রিলিজ স্লিপ নিয়ে কিছু প্রশ্ন, উত্তর

✪ প্রশ্ন-: রিলিজ স্লিপের মাধ্যমে কি পূর্বের কলেজে পূনরায় আবেদন করতে পারব ?

উত্তর: হ্যাঁ আবেদন করা যাবে। আপনি পূর্বের কলেজ সহ মোট পাচটি কলেজে নতুন করে বিষয় নির্বাচন করে আবেদন করতে পারবেন ।.

✪ প্রশ্ন-: রিলিজ স্লিপের আবেদন ফরম সংগ্রহ করার উপায় কি ?

উত্তরঃ কলেজ কতৃক রিলিজ স্লিপের আবেদন ফরম দেওয়া হয় না । জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট থেকে সংগ্রহ করতে হবে ।

✪ প্রশ্ন-: রিলিজ স্লিপের ফরম কোথায় জমা দিতে হবে ?

উত্তরঃ কোথাও জমা দিতে হবে না । স্লিপটি নিজের কাছে জমা রাখতে হবে ।

✪ প্রশ্ন-: কোন পাচটি কলেজ নির্বাচন করতে হবে?

উত্তরঃ আপনার পছন্দ অনুযায়ী বাংলাদেশের যে কোন প্রান্তের সর্বোচ্চ পাচটি কলেজ নির্বাচন করতে পারবেন ।

✪ প্রশ্ন- রিলিজ স্লিপের ফলাফল কখন প্রকাশিত হয়?

উত্তরঃ অনলাইনে আবেদন শেষ হওয়ার ৫-৭ দিনের মধ্যেই রিলিজ স্লিপের ফলাফল প্রকাশিত হয় ।

✪ প্রশ্ন-: রিলিজ স্লিপের মাধ্যমে আবেদন করলে চান্স পাওয়ার নিশ্চয়তা কতটুকু?

উত্তরঃ জেলা শহরের কলেজগুলোতে শূন্য আসন সংখ্যা খুবই কম.. অপর দিকে উপজেলা পর্যায়ের কলেজগুলো অনেক বেশি আসন খালি থাকে.. তাই আবেদন করার সময় এই বিষয়টি গুরুত্ব দিলে ১০০% পর্যন্ত ভর্তির নিশ্চয়তা থাকে..

✪ প্রশ্ন-: রিলিজ স্লিপ পূরণ করার জন্য কি কি লাগবে ?

উত্তর: রোল নম্বর ও পিন নম্বর দিয়েই অনলাইনে আবেদন করা যাবে।

✪ প্রশ্ন-: রিলিজ স্লিপ-এ আবেদনের সময় বেসরকারি কোন কলেজ চয়েস দেওয়া যাবে কিনা?

উত্তরঃ হ্যা । আপনি সরকারি-বেসরকারি মোট ৫টা (সর্বোচ্চ) কলেজ নির্বাচন করতে পারেবন ।

✪ প্রশ্ন-: কোন কলেজে কোন বিষয়ে কতগুলো সিট আসন খালি আছে, তা কিভাবে জানবো?

উত্তরঃ অনলাইনে রিলিজ স্লিপ ফরম পূরণ করার সময় কলেজের পাশে কয়টা করে আসন খালি আছে, তা দেখাবে..

✪ প্রশ্ন-: ২য় মেরিট লিস্ট-এ যে সাবজেক্ট আসবে / এসেছে, সেটাতে ভর্তি হবো না, রিলিজ স্লিপ নিতে পারবো?

উত্তরঃ পারবে..

✪ প্রশ্ন-: রিলিজ স্লিপের মাধ্যমে যে বিষয় পাবো তা কি পরিবর্তন করা যাবে ?

উত্তরঃ না । রিলিজ স্লিপে যে বিষয় পাবেন , সে বিষয়েই আপনাকে ভর্তি হতে হবে ।

✪ প্রশ্ন-: যদি রিলিজ স্লিপে আবেদন করার পর যদি কোন কলেজে ভর্তি সুযোগ না পাই তাহলে কি করব?

উত্তর : ১ম রিলিজ স্লিপে ভর্তি হতে না পারলে ২য় রিলিজ স্লিপের জন্য আবেদন করতে পারবেন।

প্রশ্ন : ভাইয়া আমি মেসেজ পাঠিয়ে ছিলাম রেজাল্ট দেখার জন্য আমার মেসেজ এ এই লিখা টি এসেছে আমি এখন কি করবো? You (*******) are not in the 2nd Merit List of Hons Admission 2017-18.You are advised to follow the next Merit List Powered by Teletalk.

উত্তর : যাদের এই মেসেজ এসেছে তারা ২য় মেরিট লিস্ট এও চান্স পাও নিহ।তাই তোমাকে এখন রিলিজ স্লিপ এ আবেদন করতে হবে এর বাইরে তোমার হাতে আর কোন অপসন নেই ।

প্রশ্ন : ভাইয়া তৃতীয় মেরিট লিস্ট কি আর দিবে?

উত্তর : নাহ তৃতীয় মেরিট লিস্ট আর দিবে নাহ কারন গতবারেও দেয় নিহ।এখন যাহ দিবে তা হচ্ছে রিলিজ স্লিপ ।

প্রশ্ন : ভাইয়া মাইগ্রেশন কি?
উত্তর -মাইগ্রেশন হল এমন এক পদ্ধতি যার মাধ্যমে তুমি তোমার রেজাল্টের ভিত্তিতে পাওয়া সাবজেক্ট পরিবর্তন করতে পারবে।
মনে রাখবে মাইগ্রেশন পদ্ধতির মাধ্যমে তোমার বিষয় চয়েজ এর উপর কেন্দ্র করে বিষয় পরিবর্তন হয়। মাইগ্রেশন কখনো নিচের দিকে যায় না। সব সময় উপরের দিকে যায়। যেমন, মনে কর তোমার চয়েজ ছিল….

1.Accounting 2.Finance 3.Marketing 4. Management 5.Bangla 6.Economic

মনে কর, এখন তুমি চান্স পেলে ৪ নং চয়েজ Management সাবজেক্টে।তুমি এখন যদি Auto Maigration কর তাহলে তোমার পয়েন্ট যাছায় বাছায় করে তোমার বিষয় পরিবর্তন হতে পারে  ।

আবারো বলছি মাইগ্রেশন কখনো নিচের দিকে হয় নাহ। Management এ ভর্তি হওয়ার সময় যদি মাইগ্রেশন Option Open করে দাও তাহলে তোমার চান্স হওয়ার সম্ভবনা থাকবে

  1. Marketing 2. Finance 1. Accounting
আরো পড়ুন:  A+ এবং Golden A+এর মধ্যে পার্থক্য কি? | জেনে নিন গোল্ডেন A+ এর আসল রহস্য

এই তিন টা সাবজেক্ট এর উপর। তোমার চান্স পাওয়া বিষয়ের পরে যে গুলো থাকবে ঐগুলো আসবে না, মাইগ্রেশনে বিষয় আসবে তোমার Management বিষয়ের আগের চয়েজ গুলো যা আছে তাদের মধ্যে।

[[বিশেষ দ্রষ্টব্য– চয়েস লিস্ট এর মধ্যে কারো যদি প্রথম সাবজেক্ট এ চান্স হয় তাহলে তার আর মাইগ্রেশন হবে না। কারণ আগেই বলেছি মাইগ্রেশন নিচের দিকে যায় না]]

প্রশ্ন : ভাইয়া আমি সেকেন্ড মেরিট লিস্ট এ চান্স পেয়েছি তাহলে আমি কি মাইগ্রেসান এর জন্য আবেদন করতে পারবো।

উত্তর : অবশ্যই পারবা।মাইগ্রেশন আবেদন Online এর মাধ্যমেই করতে হয়।তোমার চান্স হয়েছে যে বিষয়ে সেই বিষয়ে চুড়ান্ত ভর্তি ফরম প্রিন্ট করার সময় তোমাকে Auto Migration Option চালু করতে হবে। যদি এই Option টা চালু কর তবেই তুমি মাইগ্রেশন রেজাল্ট পাবে।তোমার বিষয় পরিবর্তন হবে।আর যদি Auto Migration চালু না কর তাহলে তোমার বিষয় পরিবর্তন হবে না ।আর এই কাজ টি করবা যেখান থেকে ফ্রম পুরন করেছিলা সে দোকান থেকে ।

প্রশ্ন : ভাইয়া আমি সেকেন্ড মেরিট লিস্ট এ চান্স পেয়েছি কিন্তু আমি এই সাবজেক্ট এ পড়তে চায় নাহ এখন কি করবো?

উত্তর : এখন তুমি যদি উক্ত বিষয় নিয়ে পড়তে না চাও তাহলে তুমি মাইগ্রেশন করতে পার । ভাগ্যক্রমে যদি তোমার বিষয় পরিবর্তন হয় তাহলে তোমার জন্য Good Luck, আর যদি Change না হয় তাহলে তোমার উক্ত বিষয় নিয়েই পড়তে হবে  ।

প্রশ্ন : ভাইয়া আমি মাইগ্রেসান করেছিলাম এখন আমার সাবজেক্ট চেঞ্জ হয়ে অন্য সাবজেক্ট এসেছে কিন্তু আমি এই সাবজেক্ট এ পড়তে চাচ্ছি নাহ তাহলে ভাইয়া আমি কি আগের সাবজেক্ট এ থাকতে পারব????

উত্তর : Sorry ডিয়ার তুমি আর আগের বিষয়ে পড়তে পারবে না। আর বিষয় পরিবর্তন করা সম্ভব না । সুতরাং Auto মাইগ্রেশন করার আগে অবশ্যই খেয়াল রাখবে, আমি যে বিষয় পেয়েছি সেই বিষয়ের আগের চয়েজ গুলো ভালো নাকি যেটায় চান্স পেয়েছি এটাই ভাল। উপরের বিষয় গুলোর যে কোন একটা বিষয়ে যদি পড়ার ইচ্ছা তোমার থাকে তাহলে Auto মাইগ্রেশন করতে পার ।

গত বছর এই ভুলের কারনে অনেক ভাল বিষয় পরিবর্তন হয়ে Normal বিষয় এসেছে এবং তাদের নরমাল খারাপ বিষয়ে অনার্স করতে হচ্ছে। সুতরাং তুমি মাইগ্রেশন অবশ্যই বুঝে শুনে করবে  । যারা বিষয় পরিবর্তন করতে চাও না তারা ভুলেও মাইগ্রেশন চালু করবে না।তুমি তোমার উক্ত বিষয় নিয়েই ভর্তি হয়ে যাও  ।

প্রশ্ন : ভাইয়া আমি মাইগ্রেসান এর রেজাল্ট কিভাবে দেখবো?

উত্তর :যারা মাইগ্রেসান করেছিলা তারা প্রথম বারের মতোই মেসেজ করে রেজাল্ট দেখবা। NU <Space> ATHN <Space> ROLL & Send it to 16222 ।

প্রশ্ন :ভাইয়া আমার মাইগ্রেসান হয়েছে কিনা কিভাবে বুঝবো?

উত্তর : NU <Space> ATHN <Space> ROLL & Send it to 16222 এইভাবে মেসেজ পাঠাবা যদি মেসেজ এ তোমার আগের সাবজেক্ট চেঞ্জ হয়ে অন্য সাবজেক্ট আসে তাহলে মাইগ্রেসান হয়েছে।আর যদি মেসেজ এ You are not related to Hons Admission 2015-16.- NU Authority. Powered by Teletalk. এই লিখা আসে তাহলে তোমার মাইগ্রেসান হয় নিহ । তোমাকে আগের সাবজেক্ট এই পড়তে হবে।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ কবে দিবে?

উঃ রিলিজ স্লিপ কবে দিবে সেটা বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়ে দিবে। দ্বিতীয় মেরিট লিস্ট এর ভর্তি হওয়া শেষ হবে তারপর দিবে। আনুমানিক ১৫ থেকে ২০ দিন পর  ।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ দিলে আমরা জানবো কি করে দিল কিনা দেয় নাই?
উত্তর: বিজ্ঞপ্তি দিলে আমরা আমাদের ফেসবুক এর মাধ্যমে তাৎক্ষণিক ভাবে জানিয়ে দিব ।

প্রশ্ন : ভাইয়া আমি রিলিজ স্লিপ কিভাবে পুরুন করব?
উত্তর: তুমি নতুন তাই না ও পারতে পারো, এই ক্ষেত্রে অন্য কারো হেল্প নাও অথবা কম্পিউটার এর দোকানে গিয়ে বলবে ভাইয়া আমি রিলিজ স্লিপ পূরুন করব। (টেকনাফ থেকে তেতুঁলিয়া তুমি যেই খানেই থাকো পুরুন করতে পারবে রিলিজ স্লিপ ।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ পুরন করতে হলে কলেজের কোন কাজ আছে?
উত্তর : নাহ কলেজের কোন কাজ নাই। যা কাজ তা তোমাকে অনলাইন এই করতে হবে ।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ পূরন করতে কি কি লাগবে?
উত্তর: কিছুই লাগবে না (শুধু মাত্র তোমার রোল এবং পিন নিয়ে দোকানে যাও ওরাই কাজ করে দিবে যা করার।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ এ সরকারি কলেজ কয়টা এবং বেসরকারি কলেজ কয়টা চয়েস দেয়া যায়?
উত্তর : সরকারি ৫ টা দিলে ও মানা নাই, বেসরকারি ৫ টা দিলে ও মানা নাই। সর্বোচ্চ ৫ টা কলেজ চয়েস দেওয়া যায়?সেটা তোমার ইচ্ছা মতো যে কোন ৫ টা কলেজ দিতে পারবা বাংলাদেশ এর যে কোন জেলায়  ।

প্রশ্ন : ভাইয়া কোন কলেজ এ কইটা করে সিট খালি আছে তা কি করে জানব?
উত্তর : যখন অনলাইন এ রিলিজ স্লিপ ফ্রম পুরন করবা তখন কলেজ এর পাশে কইটা করে সিট খালি আছে তা দেখাবে।সো এই নিয়ে টেনশান করার কিছুই নেই ।

প্রশ্ন : ভাইয়া অমুক কলেজ এ ২য় মেরিট লিস্ট এ লাস্ট স্কোর কত নিয়েছে?
উত্তর : জানিনা ডিয়ার

(নোটঃ- এইসব প্রশ্নের উত্তর আমার কাছে নাই) । এটা জানার যদি খুব দরকার হয় তাহলে সে কলেজে গিয়ে খোজ নাও ।

আরো পড়ুন:  সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১৩৭৮ জন শিক্ষক নিয়োগের MCQ ধরণের লিখিত পরিক্ষার সিলেবাস ২০১৮

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ এ Must সাব্জেক্ট পাব কি ?
উত্তর: ধর তুমি রিলিজ স্লিপ এ ৫ টা কলেজ চয়েস দিলা , ১ কলেজ এ সিট আছে ৩ টা করে

→খালেদা কলেজ  — ৩ টা সিট
→বারাক ওবামা কলেজ  — ৩ টা সিট
→লাদেন কলেজ – ৩ টা সিট
→জুকারবার্গ কলেজ — ৩ টা সিট
→বিলগেটস কলেজ — ৩ টা সিট

(এই সব কলেজে এপ্লাই করছে প্রতি কলেজ এ ৪ জন করে,,,এখন তোমার স্কোর

→তুমি -৯৫
→ক্যাটরিনা লাইফ  — ৯০
→আমির খান —
→জেরিন খান — ৮৫
এখন এদের ভিতর যার স্কোর বেসি সেই আগে চান্স পাবে। আসা করি বুঝতে পেরেছো  ।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ এ কোন কলেজ গুলো দিলে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা বেসি থাকবে???

উত্তর : Non Govt. college গুলোতে চয়েস দেয়া অনেক অনেক ভাল (৯৮ %শিউর চান্স পাবে) । তাই যাদের পয়েন্ট কম তারা রিলিজ স্লিপ এ Non Govt. college গুলোতে চয়েস দিও ।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ পুরন করার পর এর রেসাল্ট কবে দিবে ?
উত্তর : পূর্বের রেজাল্ট এর ন্যায় কিছু দিন পর।আনুমানিক রিলিজ স্লিপ পুরন করা শেষ হয়ে যাওয়ার ১৫ দিন পর দিবে এর রেজাল্ট।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ এর রেজাল্ট দেখব কেমন করে ?
উত্তর :প্ রথম বারের মতোই মেসেজ করে রেজাল্ট দেখবা। অথবা অনলাইনে ও দেখতে পারবে  ।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ এর রেজাল্ট দিলে কি টিভি তে জানাবে?
উঃ রেজাল্ট দিলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট ও আমদের ওয়েবসাইটে জানান হবে, এছাড়া itmona.com থেকে দ্রুত খবর পেতে পারেন।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ এ এক সাথে কি ২ কলেজে চান্স পাব, তখন যেইটা ভাল লাগবে ওই টাতে ভর্তি হব?
উত্তর : না, যে কোন ১ টা কলেজে চান্স পাবে এবং ভর্তি হতে চাইলে সে কলেজেই ভর্তি হতে হবে আর যে সাবজেক্ট দিবে সেই সাবজেক্ট এই ভর্তি হতে হবে  ।

প্রশ্ন : ভাইয়া আমার সেকেন্ড মেরিট লিস্ট এ নরমাল সাব্জেক্ট আসছে,ভর্তি হব না,রিলিজ স্লিপ নিতে পারব?
উত্তর : হুম পারবা  ।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ মাধ্যমে যে সাবজেক্ট পাবো তা কি চেঞ্জ করা করা যাবে?
উত্তর : নাহ চেঞ্জ করতে পারবা নাহ বা মাইগ্রেসান ও করতে পারবা মাহ।রিলিজ স্লিপ এ যে সাবজেক্ট পাবা সেই সাবজেক্ট এই পড়তে হবে।

প্রশ্ন : ভাইয়া রিলিজ স্লিপ এর মাধ্যমে বেসরকারি কলেজে চান্স পেয়ে এডমিট হলে,এতে কি সরকারি অনার্স এর মান পাব?

উত্তর : ১০০% সরকারি সার্টিফিকেট পাবা।জাস্ট বেসরকারি তে পড়লে খরচ একটু বেসি হবে এই আর কি।সরকারি কলেজ থেকে ১ জন ছাত্র যে সার্টিফিকেট পাবে তুমিও সে সার্টিফিকেট পাবা  ।

প্রশ্ন :ভাইয়া রিলিজ স্লিপ এ যদি চান্স না পায় আবার বাঁশ খাই, তাহলে কি করব? আর ভাইয়া কিভাবে শিউর চান্স পাবো রিলিজ স্লিপ এ বলে দিবেন প্লিজ?

উত্তর : ডিয়ার ভাইয়া/আপু যদি বুদ্ধি খাটিয়ে ৫ টা Non Govt.কলেজ চয়েস দাও তাহলে আমি নিশ্চিত বাঁশ খাবে না, সিউর কোন নাহ কোন কলেজ এ সাবজেক্ট পেয়ে যাবাহ  ।

 জরুরি কিছু কথা

 রিলিজ স্লিপ এ ৫ টা কলেজ চয়েস দিতে বলবে তুমি মন চাইলে ১ টাও দিতে পারবে, তবে সর্বোচ্চ ৫ টা কলেজ দেয়া যাবে ।
উদাঃ ঢাকা কলেজ এ সিট আছে ১০০ টা ১ম, ২য় লিস্ট এ ভর্তি হয়েছে ৯৫ জন। যখন রিলিজ স্লিপ পুরন করতে যাবে তখন
কলেজ এ ক্লিক করলে তখন দেখতে পাবে ৫ টা সিট খালি (তোমার পয়েন্ট কম তাই পাকনামি করবে না, ওই কলেজ চয়েস দিয়ে ।

 অনেকেই সাইবার ক্যাফ এ রিলিজ স্লিপ পূরন করতে যায়, ,তাড়া-তাড়ি করে দোকানদার তোমাকে কয় ১ টা কলেজ দেখাবে, আর বলবে অমুক কলেজ এ এত টা সিট আছে, ( দোকান দার তোমার জন্য ২ ঘন্টা বসে থাকবে না) তোমাকে বলবে তাড়া-তাড়ি করেন তার পরে ও তোমার দেয়া মত কলেজ গুলাতে সাবমিট করে ফেলবে

 দেখো বার বার বলছি কলেজ দেখে ভাল করে, সিট কেমন আছে,তোমার পয়েন্ট কেমন এইসব বিবেচনা করে তারপর কলেজ চয়েস দিও ।

 ১ বার সাবমিট করলে তা পূনারায় আর করা যাবে না।এখন বাসায় এসে ভাবলে তিতুমীর কলেজে মনে হয় ৩০ টা সিট ছিল, আর আমি ঢাকা কলেজ দিলাম এরমধ্যে তো ছিল মাত্র ১০ টা। দোকান দার ব্যাটার কারনে তাড়া-তাড়ি করে করে ফেললাম ওহ কি যে ভুল করলাম  ।

☞ ☞ ☞ ☞ ☞ ☞ ☞
 তোমার ভালোর জন্য বলছি, সাইবার ক্যাফেতে প্রথমে যাবে, তার পরে দোকান দার কে বলবে ভাই আপনি শুধু আমাকে অমুক জেলার মধ্যে সব কলেজের সিট দেখান,যেতেতু তুমি অমুক জেলার মধ্যে ভর্তি হতে চাও ।

 দোকান দের কে ৫০ টাকা দিলে ও দেখিয়ে দিবে। এই বার দেখ কোন কলেজে কত সিট খালি তোমার জন্য,,এই গুলা সিরিয়াল ভাবে কলেজ, সাব্জেক্ট, সিট এর নাম লিখে কাগজে বাসায় যেয়ে দেখো কোন কলেজ এ তোমার পয়েন্ট অনুযায়ী সাবজেক্ট পাওয়া পসিবল কিনা,এইসব বিবেচনা করে পূনরায় দোকান দার কে গিয়ে বলবে ভাই অমুক, অমুক কলেজ এ চয়েস দেন  ।

 মনে রাখবে ১বার যদি সাবমিট কর,তা আর চেঞ্জ করার সুযোগ নাই তাই বার বার বলছি ভাবিয়া করি ও কাজ করিয়া ভাবিও নাহ।

সকলের জন্য শুভকামনা ♥